Back  

প্রযুক্তির বিবরণ

প্রযুক্তির নাম :প্রসেসিং আলু উৎপাদনের সেচ প্রযুক্তি

বিস্তারিত বিবরণ : 

আলু একটি কন্দাল জাতীয় ফসল। অধিক শর্করা থাকার কারণে অনেক দেশেই আলু প্রধান খাদ্য এবং প্রধান সম্পূরক খাদ্য হিসেবে ব্যবহৃত হয়। বাংলাদেশে গমের পরই প্রক্রিয়াজাতকরণ খাদ্য হিসেবে আলুর ব্যবহার ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। অধিকন্তু-চিপস্, ফ্রেঞ্চ ফ্রাই ইত্যাদি খাদা তৈরির জন্য আলুর বিশেষ জাত অত্যমত্ম গুরুত্বপূর্ণ। আলুর অধিকাংশ মুল মাটির কম গভীরতায় থাকায় সময়মত সেচ প্রয়োগ না করলে মাটিতে পানি ঘাটতির দরুণ ফলন কমে যায়। এতে প্রসেসিং খাদ্য হিসেবে আলুর গুণাবলী নষ্ট হয়ে যায়। ফলে সময়মত প্রয়োজনীয় পরিমাণ সেচ প্রয়োগের মাধ্যমে আশানুরূপ ফলন পাওয়া যায় এবং অধিক মুনাফা অর্জন করা সম্ভব।
আলু উৎপাদনে সেচের গুরুত্ব অপরিসীম। বিশেষ করে রবি মৌসুমে আলুতে সেচ প্রয়োগ করলে ফলন কয়েকগুর বেড়ে যায়। আলুর তিনটি সংবেদনশীল বৃদ্ধি পর্যায়ে রয়েছে যে সময় সেচ প্রয়োগ একান্ত অপরিহার্য।
প্রথম সেচ : বীজ আলু বপনের ২০-২৫ দিনের মধ্যে (স্টোলন বের হওয়া পর্যায়ে)

দ্বিতীয় সেচ : বীজ আলু বপনের ৪০-৪৫ দিনের মধ্যে (গুটি বের হওয়া পর্যায়ে)

তৃতীয় সেচ : বীজ আলু বপনের ৬০-৬৫ দিনের মধ্যে (গুটি বৃদ্ধি পর্যায়ে)

সেচ এমনভাবে প্রয়োগ করতে হয় যেন গাছের শিকড়াঞ্চলের মাটি ভালভাবে ভিজে। গভীর বা অগভীর বা হস্তচালিত নলকূপ বা ভূ-উপরিস্থ পানি হতে পলিথিন হুস পাইপ বা ফারো (নালা) পদ্ধতিতে সেচ প্রয়োগ করাই উত্তম। অতিরিক্ত সেচের দরুণ যাতে গাছের গোড়ায় জলাবদ্ধতা না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। এই প্রযুক্তিতে মৌসুমে আলুর জন্য ১৬০-১৮০ মিঃমিঃ পানির প্রয়োজন হয়।
গবেষণার ফলাফলে দেখা গেছে যে, গাছের চাহিদা মোতাবেক মাটিতে উপযুক্ত সময়ে সঠিক পরিমাণ পানি প্রয়োগ করলে প্রসেসিং আলুর (বারি আলু-২৫ এবং বারি আলু-২৮) ফলন ও পানির উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি পায় এবং খরচও কমে যায়। প্রসেসিং বারি আলু-২৫ ও বারি আলু-২৮ এর দুইটি সংবেদনশীল পর্যায় অর্থাৎ স্টোলন এবং গুটি বৃদ্ধির সময় সেচ প্রয়োগ একান্ত অপরিহার্য। এই পদ্ধতিতে আলু চাষ করলে বারি আলু-২৫ এর ফলন ৩৩-৩৫ টন/হেক্টর, পানির উৎপাদনশীলতা ২২-২৭ কেজি/ঘনমিটার এবং আয়-ব্যয়ের অনুপাত ২.৭ঃ১-৩.৬ঃ১ হয় এবং প্রতি হেক্টরে নীট মুনাফা ৩,০০,০০০-৪,০০,০০০ টাকা অর্জন করা সম্ভব। অন্যদিকে বারি আলু-২৮ এর ফলন ২৯-৩২ টন/হেক্টর, পানির ব্যবহার ১৫০-১৯০ মিঃমিঃ পানির উৎপাদনশীলতা ১৯-২৬ কেজি/ঘনমিটার এবং আয়-ব্যয়ের অনুপাত ২.৭ঃ১-৩.২ঃ১ হয়। বারি আলু-২৫ ফ্রেঞ্চ ফ্রাই এবং বারি আলু-২৮ চিপস্ এর জন্য উপযোগী। পানি সুষ্ঠু ব্যবহারর ফলে প্রসেসিং আলুর গুণগত খাদ্যমান অর্থাৎ টিএসএস ৫-৬ ব্রিকা্র ঘনত্ব ১-১.২, ড্রাই মেটার ২১-২৪% এবং শর্করা ১৫-১৭% ইত্যাদি বজায় থাকে যা বারি আলু-২৫ এর চেয়ে বারি আলু-২৮ এর গুণগত মান বেশি পাওয়া যায়।

প্রসেসিং আলু উৎপাদনের সেচ প্রযুক্তি (ছবি-১)

প্রসেসিং আলু উৎপাদনের সেচ প্রযুক্তি (ছবি-২)


প্রয়োজনে সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞের সাথে কথা বলুন।
 
Back